Pre-loader logo

হাফেজদের সম্মানিত করতে অনুষ্ঠিত হচ্ছে মেগা রিয়েলিটি শো ‘কুরআনের নূর’ – ভোরের দর্পণ

হাফেজদের সম্মানিত করতে অনুষ্ঠিত হচ্ছে মেগা রিয়েলিটি শো ‘কুরআনের নূর’ – ভোরের দর্পণ

আসন্ন রমজানে দেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মত অনুষ্ঠিত হচ্ছে হিফজুল কুরআন বিষয়ক মেগা রিয়েলিটি শো ও দেশব্যাপী হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতা-২০২৩ ‘কুরআনের নূর’- পাওয়ার্ড বাই বসুন্ধরা গ্রুপ। দেশের বৃহৎ শিল্পগ্রুপ বসুন্ধরার সহযোগিতায় অনুষ্ঠিত এ আয়োজনে দেশ সেরা অনুর্ধ্ব ১৫ বছর বয়সী পবিত্র কুরআনের হাফেজদের সম্মাননা জানানো হবে।

জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম মুসল্লি কমিটির উদ্যোগে ‘কুরআনের নূর’ উপলক্ষ্যে বুধবার (১ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর ইসলামিক ফাউন্ডেশনে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদ মুসল্লি কমিটির প্রধান উপদেষ্টা ও বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সায়েম সোবহান আনভীর উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া সংবাদ সম্মেলনে শায়েখ আহমাদ বিন ইউসুফ আল আযহারী, পেশ ইমাম শায়খূল হাদিস মুহাম্মদ মুহিব্বুল্লাহিল বাকী আন নদভী, মাওলানা মিজানুর রহমান, মুফতি এহসানুল হক জিলানী, মাওলানা মহিউদ্দিন কাসেমীসহ ইসলামিক স্কলার ও দেশ বরণ্যে আলেম-ওলামাগণ উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ঢাকা বিভাগের উত্তর-দক্ষিণ দুটি জোনসহ পুরো দেশের মোট ১১ জোন থেকে অনুর্ধ্ব ১৫ বছর বয়সী ৩০ পারা কুরআনের হাফেজগণ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে পারবেন। জোনগুলো হলো- সিলেট, ময়মনসিংহ, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, রংপুর, খুলনা, ফরিদপুর, বরিশাল, ঢাকা উত্তর ও ঢাকা দক্ষিণ।

দেশের নয়টি বিভাগ থেকে সেরা ৩ জন হাফেজ ২য় রাউন্ড বা ঢাকা অডিশনে যোগ দিবেন। এই তিনজনকে অভিভাবকসহ ঢাকায় আনা হবে। আর ঢাকা বিভাগের দুই জোন থেকে ৯ জন করে হাফেজ দ্বিতীয় রাউন্ডে অংশগ্রহণ করবেন।

এরপর ৪৫ জন প্রতিযোগী নিয়ে অনুষ্ঠিত হবে বিশুদ্ধ ও সুন্দর কুরআন তিলাওয়াতের শ্রেষ্ঠত্বের প্রতিযোগিতা। দেশ বরণ্যে ইসলামিক স্কলার ও অভিজ্ঞ হাফেজদের সমন্বয়ে গঠিত বিচারক মণ্ডলী এখান থেকে ফাইনাল রাউন্ডের জন্য ৫ জন কুরআনের হাফেজকে বাচাই করবেন।

রিয়েলিটি শো ও দেশব্যাপী হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতা-২০২৩ ‘কুরআনের নূর’ এর প্রথম বিজয়ী একজন পাবেন ১০ লাখ টাকা ও সম্মাননা। দ্বিতীয় বিজয়ী একজন পাবেন ৭ লাখ টাকা ও সম্মাননা। তৃতীয় পুরস্কার একজন পাবেন ৫ লাখ টাকা ও সম্মাননা। চতুর্থ ও পঞ্চম পুরস্কার হিসাবে ২ জন পাবেন ২ লাখ টাকা করে ও সম্মাননা। সেরা ১০ এ থাকা বাকি ৫ জনও পাবেন আর্থিক পুরস্কার ও সম্মাননা।

এই প্রতিযোগিতায় বিচারকের প্যানেলে থাকবেন বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের পেশ ইমাম শায়খুল হাদীস মুফতি মুহিব্বুল্লাহিল বাকী আন নদভী, শায়েখ আহমাদ বিন ইউছুফ আল আযহারী,বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের সিনিয়র পেশ ইমাম মুফতি মিজানুর রহমান,বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের পেশ ইমাম শায়খুল হাদীস মুফতি এহসানুল হক জিলানী, বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের পেশ ইমাম শায়খুল হাদীস মুফতি মুহিউদ্দীন কাসেম ও মেয়র মুহাম্মদ হানিফ জামে মসজিদের ইমাম ইমরান নূর উদ্দিন।

`কুরআনের নূর’ মেগা রিয়েলিটি শো টি নিউজ ২৪ টেলিভিশন চ্যানেলে সম্প্রচার হবে। এছাড়া মিডিয়া পার্টনার হিসাবে আছেন দৈনিক কালের কন্ঠ, বাংলাদেশ প্রতিদিন, বাংলানিউজ ২৪ ও ক্যাপিটাল এফএম ।
বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের পেশ ইমাম শায়খুল হাদীস মুফতি মুহিব্বুল্লাহিল বাকী আন নদভী বলেন,পবিত্র কুরআন নাজিলের মাস আমাদের বহুল প্রতীক্ষিত সিয়াম সাধনার মাস পবিত্র মাহে রমাদানে বসুন্ধরা গ্রুপের পক্ষ থেকে নিবেদন করা হচ্ছে ‘কুরআনের নুর’। এই আয়োজনের মাধ্যমে কোরআনের শ্রেষ্ঠ হাফেজদের সম্মাননা ও আর্থিকভাবে পুরস্কৃত করবে বুসন্ধরা গ্রুপ। দেশের কুরআনে হাফেজদের পাশে বরাবরই আন্তরিকতার সাথে পাশে থেকেছে বসুন্ধরা গ্রুপ। তবে এবার এই হাফেজদের জন্য বসুন্ধরা গ্রুপ সুদূর প্রসারী পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে। যার শুভসূচনা হচ্ছে পবিত্র কুরআন নাজিলের মাসে কুরআন প্রতিযোগিতার মেগা রিয়েলিটি শো ‘কুরআনের নূর’ দিয়ে।

তিনি বলেন, বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সায়েম সোবহান আনভীরের ইচ্ছা ও অনুপ্রেরণায় জাতীয় মসজিদ এই প্রথম জাতীয় কোন আয়োজনের সঙ্গে সরাসরি সম্পৃক্ত হলো। আর সেটি হলো কুরআনের অনুষ্ঠান। আমরা বসুন্ধরা গ্রুপের এমডি সায়েম সোবহান আনভীর, উনার পরিবার, পিতা-মাতাসহ সকলে যাতে ইসলামের খেদমতে আরো এগিয়ে আসতে পারে সেই দোয়া করি।

তিনি আরো বলেন, বসুন্ধরার এমডির বিশেষগুণ হলো উনি সঠিক কাজের জন্য সঠিক ব্যাক্তিদের ঠিক করতে পারেন। এ জন্য কোন কাজে ব্যর্থ হননা। উনি জাতীয় মসজিদের মুসল্লি কমিটির মাধ্যমে সারা দেশের গরীব ও পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ে এমন মানুষদের ওমরাহ হজ্জে পাঠানোর ব্যবস্থা করেছেন। রমজানে গরীব ও মুসল্লিদের মাঝে ইফতার বিতরন করছেন। আল্লাহ উনাকে ইসলামের খেদমতে কবুল করুন।

বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের খাদেম আবদুল মান্নান বলেন, আমার ছোট বেলা থেকে ইচ্ছা ছিল হজ্জে যাওয়ার। প্রিয় নবীর রওজা মোবারক জিয়ারত করার। কিন্তু সামর্থ্য ছিল না। আল্লাহ বসুন্ধরা গ্রুপের এমডির মাধ্যমে আমার সেই ইচ্ছা পূরণ করছেন। বসুন্ধরা গ্রুপ ও এমডির জন্য আমি নবীজীর রওজার পাশে নামাজ পড়ে দোয়া করেছি।

 

Source : ভোরের দর্পণ

Copyright © 2023 Sayem Sobhan Anvir.
All Rights Reserved.